রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১ | ১৩ই অগ্রহায়ণ ১৪২৮

অধ্যাপক মো. হাশেম ও অধ্যাপক রমানাথ সেনের নাগরিক শোকসভা আজ

জাগরণ ডেস্ক //

বরেণ্য গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীত শিল্পী অধ্যাপক মোঃ হাশেম এবং রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী অধ্যাপক রমানাথ সেন স্মরণে নাগরিক শোকসভার আয়োজন করেছে নাগরিক কমিটি। নোয়াখালী বিআরডিবি মিলনায়তনে আজ বিকেল সাড়ে ৩টায় এ নাগরিক শোকসভা অনুষ্ঠিত হবে।এতে সভাপতিত্ব করবেন নাগরিক কমিটি, নোয়াখালীর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মিয়া মোঃ শাহজাহান। সঞ্চালনা করবেন নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট কাজী মানছুরুল হক খসরু।

চলতি বছরের ২৩ মার্চ প্রয়াত হন নোয়াখালীর আঞ্চলিক গানের সম্রাট বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, কিংবদন্তী গীতিকার, সুরকার ও গায়ক অধ্যাপক মোঃ হাশেম। তিনি নোয়াখালীর আঞ্চলিক গান, লোকগীতিসহ প্রায় আড়াই হাজার গান রচনা, সুরারোপ করেন। কণ্ঠশিল্পী হিসাবে বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের প্রথম শ্রেণীর তালিকাভুক্ত শিল্পী ছিলেন। নোয়াখালীর আঞ্চিলিক গানের জনক হিসেবে তিনি নন্দিত। এদিকে, অধ্যাপক মোঃ হাশেম পেশা জীবনে কবিরহাট সরকারি কলেজ, লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ, ঢাকা সঙ্গীত কলেজ, নোয়াখালী সরকারি কলেজসহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা করেন।

এদিকে গত ৩ আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন নোয়াখালীর আরেক সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক রমানাথ সেন। তিনিও প্রায় ৩শ’ গানে সুরারোপ করেন। তিনি বিশিষ্ট রবীন্দ্র সঙ্গীত শিল্পী ও সঙ্গীত প্রশিক্ষক হিসেবে দীর্ঘসময় কর্মরত ছিলেন। পাশাপাশি তিনি শিক্ষকতা করেছেন নোয়াখালী সরকারি কলেজসহ দেশের বিভিন্ন কলেজে।

শোকসভায় নোয়াখালীর সাংস্কৃতিক অঙ্গনের শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, শিল্পী, কলাকুশলী ও শুভ্যানুধায়ীদের আমন্ত্রন জানিয়েছেন আয়োজকরা।

এ প্রসঙ্গে শিল্পী অধ্যাপক মোঃ হাশেমের সহোদর সঙ্গীত শিল্পী ওস্তাদ মোঃ কামাল উদ্দিন জানান, জীবদ্দশায় এই দুই কিংবদন্তী শুধু নোয়াখালী নয়, সঙ্গীত ভূবনকে অনেক কিছু দিয়েছেন। মো: হাশেম তাঁর সৃষ্টির মাধ্যমে গোট বিশ্বে নোয়াখালীকে পরিচিতি দিয়েছেন। আর সাংস্কৃতিক অঙ্গণে রমানাথ সেনের অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। তাঁদের চলে যাওয়া জেলার সংস্কৃতির মহলের অপূরনীয় ক্ষতি। এই দুই সুরশ্রষ্টাকে শ্রদ্ধা জানাতে পারলে গোটা নোয়াখালীবাসী গর্বিত হবে।

সংবাদটি আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন