শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২২ | ১৪ই মাঘ ১৪২৮

অভিনেতা কে এস ফিরোজ আর নেই

নন্দিত অভিনেতা কে এস ফিরোজ আর নেই। আজ বুধবার সকাল ৬টা ২০ মিনিটে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। ইন্না-লিল্লাহ….. রাজিউন।

করোনায় আক্রান্ত ছিলেন কে এস ফিরোজ। করোনার বিষয়টি মাথায় রেখে সামাজিক দূরত্ব মেনেই চলছে তার দাফন প্রক্রিয়া।

তার পারিবারিক নাম মেজর (অব.) খন্দকার শহীদ উদ্দিন ফিরোজ। দর্শকের কাছে তিনি কে এস ফিরোজ নামেই পরিচিত। কে এস ফিরোজ ১৯৬৭ সালে সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। মেজর হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে ১৯৭৭ সালে সেনাবাহিনী থেকে অবসর নেন। তাঁর পুরো নাম খন্দকার শহীদ উদ্দিন ফিরোজ। তিনি ১৯৪৬ সালের ৭ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন। বরিশালের উজিরপুরের মশাং গ্রামে তাঁদের আদি নিবাস হলেও ফিরোজের জন্ম ঢাকার লালবাগে। তাঁর বাবার নাম এ জে এম সাইদুর রহমান। তবে এলাকার মানুষ তাঁর বাবাকে উজির মিয়া নামেই চিনতেন। কে এস ফিরোজের মা রাবেয়া খাতুন। ফিরোজ ১৯৭৪ সালের ১ নভেম্বর বিয়ে করেন। তিনি স্ত্রী মাধবী ফিরোজ এবং তিন মেয়ে রেখে গেছেন।

কে এস ফিরোজের মেয়ে নাদিয়া ফিরোজ জানান, বনানী সামরিক কবরাস্থানে কে এস ফিরোজের জানাজা হবে আজ বুধবার বাদ জোহর। এরপর সেখানেই সেনাবাহিনীর জন্য নির্ধারিত স্থানে তাকে দাফন করা হবে। দাফনের আগে সামরিক বাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা হিসেবে কে এস ফিরোজকে সর্বশেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করবে সশস্ত্র বাহিনী।

নাদিয়া ফিরোজ আরও জানান, তার বাবা গেল কয়েকদিন ধরেই নিউমোনিয়ায় ভুগছিলেন। সম্প্রতি তিনি নিউমোনিয়ার ইঞ্জেকশন নিতে আইসিডিডিআরবিতে যান। সেখান থেকে ফিরেই জ্বরে আক্রান্ত হন। পরে একটি হাসপাতালে তিনি ভর্তিও হন। সেখানে পরীক্ষার পর জানা যায় কে এস ফিরোজ করোনায় আক্রান্ত।

করোনা নিয়ে তাকে মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) সিমএইচে ভর্তি করা হয়। সেখানে ভর্তি হয়েই লাইফ সাপোর্টে রাখা হয় তাকে। শেষ রক্ষা হয়নি। আজ সকালে পৃথিবী ছেড়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান কে এস ফিরোজ।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৬ বছর৷ চলতি বছরের ৭ জুলাই তিনি জীবনের ৭৫ বছর পার করেছিলেন।

এদিকে এই অভিনেতার মৃত্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শোক ও শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন শোবিজের নানা অঙ্গনের মানুষ।

সংবাদটি আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন