সোমবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২১ | ২১শে অগ্রহায়ণ ১৪২৮

শিগগিরই করোনা টিকা ছাড়পত্রের আবেদন করবে ভারত

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট শিগগিরই করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের জরুরি নিবন্ধনের জন্য আবেদন করবে। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করা হতে পারে।

গতকাল শনিবার (২৮ নভেম্বর) ইনস্টিটিউটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আদর পুনাওয়ালা এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ভ্যাকসিনটি অনুমোদন পেলে প্রথমে ভারতে ও পরে আফ্রিকার দেশগুলোতে বিতরণ করা হবে। ব্রিটেন ও ইউরোপে এই ভ্যাকসিন সরবারহ করবে অক্সফোর্ড ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পুনেতে সেরাম ইনস্টিটিউটে ভ্যাকসিন উত্পাদন কার্যক্রম পরিদর্শনের পর পুনাওয়ালা নিবন্ধনের আবেদনের বিষয়টি জানালেন। সেরাম ইনস্টিটিউট অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ব্রিটিশ-সুইডিশ ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাস্ট্রাজেনেকার সহযোগিতায় ভ্যাকসিন উৎপাদন করছে।

পুনাওয়ালা সংবাদ সম্মেলনে বলেন, দেশে জরুরি ক্ষেত্রে অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন ব্যবহারের জন্য কেন্দ্রের কাছে আবেদন করবে সেরাম ইনন্টিটিউট। তবে এখনো পর্যন্ত কেন্দ্র আমাদের বলেনি কত ভ্যাকসিন সরকার কিনবে। তবে মনে হচ্ছে ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত ৩০-৪০ কোটি ডোজের প্রয়োজন হতে পারে। আগামী ২ সপ্তাহের মধ্যে অক্সফোর্ড ভ্যাকসিনের জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের জন্য কেন্দ্রের কাছে আবেদন করবো।

অক্সফোর্ড ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা নিয়ে তিনি বলেন, ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা বোঝার জন্য যতটা ট্রায়াল হওয়ার কথা ছিল তার থেকেও বেশি হয়েছে। এবার ১৮ বছরের কম বয়সীদের ওপরে ট্রায়াল শুরু করা হবে।

এর আগে গত সোমবার অক্সফোর্ড ও অ্যাস্ট্রাজেনেকা জানিয়েছে, তাদের উদ্ভাবিত ভ্যাকসিনের শেষ দিকের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ৯০ শতাংশ কার্যকারিতা পাওয়া গেছে।

মোদির সেরাম ইনস্টিটিউট পরিদর্শনকালে পুনাওয়ালা তার সাথে ভ্যাকসিনের মূল্য নির্ধারণ ও সরবরাহ সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয় ও অন্যান্য ভ্যাকসিনের বিষয়ে আলোচনা করেন।

সেরাম ইনস্টিটিউট বর্তমানে প্রতি মাসে ৫০ থেকে ৬০ মিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন উত্পাদন করছে ও আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে প্রতি মাসে ১০০ মিলিয়ন ডোজ উৎপাদনের পরিকল্পনা নিয়েছে। -এনডিটিভি ও ডেইলি স্টার

সংবাদটি আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন