সোমবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২১ | ২১শে অগ্রহায়ণ ১৪২৮

অ্যাস্ট্রাজেনেকার পূর্ণ ডোজ নেওয়া ৯৩ শতাংশের শরীরে অ্যান্টিবডি

নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকায় ভালো সাড়া পাচ্ছেন বাংলাদেশের মানুষ। ঢাকা মেডিকেল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের গবেষণায় দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া ব্যক্তিদের ৯৩ শতাংশের মধ্যে অ্যান্টিবডি পাওয়া গেছে। আজ রোববার আনুষ্ঠানিকভাবে গবেষণার ফলাফল জানানো হয়।

গবেষণায় কোভিশিল্ড টিকা নেওয়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ৩০৮ জন চিকিৎসক, শিক্ষক, নার্স, কর্মকর্তা, কর্মচারীর নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পাঁচ মাসব্যাপী পরিচালিত এ গবেষণায় অর্থায়ন করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এতে নেতৃত্ব দেন মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান ডা. এস এম সামসুজ্জামান।

গবেষণায় দেখা গেছে, কোভিশিল্ডের প্রথম ডোজ নেওয়া ৪১ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া ৯৩ শতাংশের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে।

ডা. এস এম সামসুজ্জামান বলেন, ‘আমরা টিকা নেওয়া ব্যক্তিদের অ্যান্টিবডির উপস্থিতি দেখতে চেষ্টা করেছি। গবেষণায় অংশ নেওয়া ব্যক্তিদের ৮০ শতাংশের বয়স ছিল ৪০ থেকে ৫০ বছর। আমরা বলতে পারি, টিকা নেওয়ার পর মৃত্যু হবে না, আক্রান্ত হলেও উপসর্গ দেখা দেবে না, আক্রান্ত হলেও মারাত্মক হবে না।’

ডা. সামসুজ্জামান আরও বলেন, ‘আমাদের উদ্দেশ্য ছিল, টিকা নেওয়ার পর কী পরিমাণ অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে তা যাচাই করা। আমরা যে ফল পেয়েছি তা অত্যন্ত ইতিবাচক। যুক্তরাষ্ট্রে দ্বিতীয় ডোজ নেওয়া ব্যক্তিদের শতভাগ অ্যান্টিবডি পাওয়া গেছে। সামনে আমাদেরও হয়তো এমন হবে। তবে অ্যান্টিবডি কত দিন থাকবে তা এখনো নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।’ সামনে চীনের টিকায়ও এমনভাবে অ্যান্টিবডি যাচাইয়ের পরিকল্পনা আছে বলেও জানান তিনি।

অর্থায়ন পেলে সামনে আরও বড় পরিসরে গবেষণা চালানো হবে বলে জানিয়েছেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত অন্য গবেষকেরা।

সংবাদটি আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন